Wed, 21 Feb, 2018
 
logo
 

শামীম ওসমানের দৃষ্টিতে সেই দিনের সংঘর্ষ

স্টাপ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সায়সদ শামীম ওসমান বলেছেন, এটা সত্যা আমাদের দেশে এখনো অধিকাংশ লোকই নিম্ন মধ্যে বৃত্ত, মধ্য বৃত্ত ও অর্থ সম্পদ হীন। কিন্তু তাদের পরিচয় হচ্ছে মানুষ।

গত ২৫ ডিসেম্বার যে দিন খ্রিষ্টান সম্পদায়ের একটি বড় দিন নারায়ণগঞ্জ হঠাত করে কোন নোটিশ ছাড়া হকার উচ্ছেদ শুরু হয়। এটা যদিও অনেকের কাছেই অবৈধ।  তারা নিজের সন্তানকে লালন, পালন করার জন্য, দুই বেলা দু মুঠো খাওয়ার জন্য, বাচ্চাদের লেখা পড়া করার জন্য যারা ফুটপাতে ব্যবসা করছে, তাদেরকে সেই দিন পিটিয়ে উচ্ছেদ করেছেন সিটি করপোরেশন। পাশাপাশি মালামাল নিয়ে সিটি করপোশেনের সামনে পুড়িয়ে দিয়েছেন। তখন হকারা আমার কাছে আসলে, আমি বলেছি আমি অপারক, আমার কাছে কিছু করার নাই। আপনারা মেয়রের কাছে যান।


বুধবার (১৭ জানুয়ারী) বিকালে নারায়ণগঞ্জের রাইফেল ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে শামীম ওসমান একথা বলেন।


শামীম ওসমান বলেন, এরপরে তারা সিটি করপোরেশনে কয়েকবার গেছে, কিন্তু কোন ফল পান নাই। তারপরে এই শ্রম জীবী মানুষের দায়িত্ব নিয়েছে বামমোর্চ।  তাদের জাতীয় পর্যায়ের নেতারা এসে নারায়াণগঞ্জে একের পর এক মিটিংও করেছে। জাতীয় পর্যায়ের নেতা মঞ্জুরুল হক খান এসেও মিটিং করেছেন। এটা খুব পরিস্কার সত্য কথা, এই বামমোর্চার নেতারা সেলিনা হায়াৎ আইভীকে এই আইভী বানানোর পিছনে গত ৫ বছর অক্লান্ত পরিশ্রম করেছে।


শামীম ওসমান বলেন, যেহেতু তারা অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন, তাদের মাধ্যমে হয়তো সমস্যাটির সমাধান হবে বেভে ছিলাম। একারণে আমি আর কোন কথা বলি নাই। কিন্তু আমি দেখলাম তাদের কথাতে কোন কাজ হচ্ছে না। এরপরে এই এলাকার লোকাল এমপি সেলিম ওসমানকে আমি বল্লাম যে ‘আপনি কিছু একটা করেন’ ওনি একটা চিঠি পাঠালেন। কিন্তু উনি চিঠি পাঠালেন তার কর্মচারির মাধ্যমে ‘ওখানে পরিস্কার ভাষায় লেখা ছিলো তারা পারবে না, বিকল্প হিসেবে যে কয়টি জায়গা দেখালো, তার মধ্যে ২টি হলো মানুষের ব্যক্তিগত জমি।


আমি রাজনীতি গরিব মানুষের জন্য করি, এতে যদি আমাকে রাজনীতি করতে দেয়া না হয় আমি করবো না। তারপরেও আমি গরিব মানুষের বিপক্ষে যাবো না।


এমপি আরো বলেন, প্রশাসন থেকে আমাকে জানানো হলো, আইভী প্রেস ক্লাবের সামনে একটি প্রেস কন্ফারেস করবে, আমি হকাদের বুঝালাম। উনি যা বলে তুমরা মেনে নিবা। উনি আসলিন, তার কাছের বন্ধু সুফিয়ানও আসলেন। তার সাথে পিস্তল নিয়ে। সুফিয়ানের কাছে পিস্তল থাকবে কেন। বিএনপির বিশাল ক্যাডার সুমান হাতে অস্ত্র নিয়ে গুলি করছে। কে এই সুমান?


এসময় তার সাথে একাধীক মামলার আসামী যুবদলের আহ্বায়দ খোরশেদ, বিভা যার স্বামী হাসান এবং বড় ভাই মজিদ জোড়া খুনের আসামী। কিন্তু প্রশাসক তাদের ধরছে না। কার নির্দেশে ধরছে না।


পাট সমিতির সামনে হকারদের মারধোর করে উঠিয়ে দিলেন, নুর মসিজিদের সামনেও হকারদের মারধর করলেন। এসময় হকাদের জিনিস পত্র পুরিয়ে দিলেন।


শামীম ওসমানের দাবি, একা এতগুলো মানুষের সাথে যত সাহসী লোকই থাকুক না কেন ঝগড়া করতে যাবে না। নিয়াজুলকে একবার দ্ইু বার না, ৩ দফা মারার পরে, সঙ্গে থাকা লাইন্সেসকৃত পিস্তল বেড় করেছে। এসময় নিয়াজুলকে মারধোর করা হলে, নিয়াজুলের আত্মিয় স্বেচ্ছা সেবক লীগের সভাপতি জুয়েল গেলে তার মাথাও ফাটিয়ে দেয় তারা। পরে জুয়েলের জন্য আওয়ামীলীগের নেতাকর্মী গেলে এই ঘটনা ঘটে।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম