Tue, 24 Apr, 2018
 
logo
 

মাসদাইরের ‘নারায়ণগঞ্জ মহানগর আইডিয়াল স্কুলে’র বিরুদ্ধে জালিয়াতির অভিযোগ!

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে ফতুল্লার মাসদাইরস্থ নারায়ণগঞ্জ মহানগর আইডিয়াল স্কুলের বিরুদ্ধে। বিভিন্ন অজুহাতে টাকা আদায়, শিশু শিক্ষার্থীদের সাথে অমানবিক আচরণ এর মধ্যে অন্যতম।

তবে সবচেয়ে বড় অভিযোগ হলো এই স্কুলের নামকরণ নিয়ে।
শহরের নামকরা একটি স্কুলের নাম আইডিয়াল স্কুল। শহরবাসী বলতেই এ স্কুলের নাম জানেন। কৌশলে এ নাম ব্যবহার করছে মাসদাইরের নারায়ণগঞ্জ মহানগর আইডিয়াল স্কুল কর্তৃপক্ষ। এ নিয়ে তাদের বিরুদ্ধে জালিয়াতির অভিযোগও উঠেছে। শহরের আইডিয়াল স্কুলের একজন শিক্ষক এ প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে জানান, সম্প্রতি একটি সংবাদের ভিত্তিতে বিষয়টি দৃষ্টিগোচর হয়েছে। কর্তৃপক্ষকে আমি এ বিষয়ে অবহিত করবো।
সরেজমিনে দেখা গেছে, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার এনায়েতনগর ইউনিয়নের মাসদাইর বেকারী মোড় এলাকার একটি বাড়িতে নারায়ণগঞ্জ মহানগর আইডিয়াল স্কুল অবস্থিত। এ স্কুলের একজন মালিক সহিদ আগে বিদ্যুত মিটার রিডারের গ্যাটিস্ট বা দালাল হিসেবে কাজ করতেন। ওই সময় বাড়ি বাড়ি গিয়ে মিটার রিডারের নাম ভাঙ্গিয়ে মাসোয়ারা তোলার অভিযোগ আছে তার বিরুদ্ধে। স্বাক্ষর জালিয়াতি করে মিটারের রকম পরিবর্তন, বেশী টাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ, অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে অঢেল টাকা কামিয়েছে সে। এলাকায় তাকে সবাই কারেন্ট চোর বলে ডাকে। যদিও এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তিনি।
এদিকে ইউনিয়ন এলাকায় স্কুলের নাম মহানগর কেন এমন প্রশ্নের যথাযথ উত্তর দিতে পারেননি সহিদ। তবে ধারনা করা হচ্ছে, শহরের আইডিয়াল স্কুলের সুনাম দেখে জালিয়াতি ও কৌশল করে এরকম নাম দিয়েছে সে।
গত ২ ডিসেম্বর চাঁদা না দেয়ায় প্রথম শ্রেনীর এক শিশুকে ক্লাশপার্টির উপহার দেয়নি ওই স্কুল। সৈয়দ আবু জাহের নামে এক ব্যক্তি জানান, আমার নাতি জুনাইদ ওই স্কুলের প্রথম শ্রেনীর ছাত্র। ওই অনুষ্ঠানে অন্য শিক্ষার্থীদের  হাতে স্কুল কর্তৃপক্ষ খাবার ও উপহার সামগ্রী তুলে দিলেও জুনাইদকে দেয়নি। স্কুল কর্তৃক নির্ধারিত ১ শ’ টাকা চাঁদা না দেয়ায় ওই শিশুটির সাথে এমন কান্ড করেন স্কুল কর্তৃপক্ষ। এদিকে সহপাঠিদের মতো উপহার সামগ্রী না পেয়ে কান্না শুরু করে শিশুটি। তা দেখেও মন গলেনি ব্যক্তি মালিকানা ওই স্কুল কর্তৃপক্ষের। স্কুলে কর্মরত একজন জানান, স্যারের ( স্কুল মালিক সহিদ) কড়া নির্দেশ ছিলো, যে চাঁদা দেয় নাই তাকে যেনো কোন উপহার দেয়া না হয়। এদিকে সারা রাস্তা জুড়ে কাঁদতে কাঁদতে বাড়ি যায় শিশুটি। বাড়ি গিয়েও কান্না থামেনি তার।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম