Tue, 18 Dec, 2018
 
logo
 

শিল্পির রং-তুলির আঁচড়ে পূর্ণতা পাচ্ছে প্রতিমা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: দেবী দূর্গার আগমনে অশুভ শক্তির বিনাশ আর জগতে শান্তি প্রতিষ্ঠা হবে। এমন বিশ্বাস নিয়ে প্রতিবারের মত এবারও নারায়ণগঞ্জ জেলায় ২০৩টি ম-পে চলছে দূর্গা পূজা উৎযাপনের ব্যাপক প্রস্তুতি। এরই মধ্যে জেলার পূজা ম-প গুলোতে প্রতিমা গড়ার মূল কাজ শেষ হয়েছে। এখন চলছে প্রতিমায় রং তুলির কাজ। ব্যস্ত সময় পার করছেন মৃৎ শিল্পিরা। আবার কোথাও কোথাও চলছে প্যান্ডেল তৈরি আর সাজ-সজ্জার কাজ। পূজার সময় দেশে-বিদেশের বিভিন্ন স্থান থেকে নারায়ণগঞ্জের এসব ম-পে দর্শনার্থীরা ছুটে আসেন।

নগরীর কয়েকটি পূজা মন্ডপ পরিদর্শনে দেখা যায়, জেলার প্রতিটি ম-পের প্রস্তুতি শেষ দিকের। তবে, কিছু কিছু মন্ডপে এখনও চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ। মৃৎ শিল্পীরা খড়-মাটির কাজ শেষ করে রংয়ের কাজে এখন ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। দিন-রাত পরিশ্রমে রং-তুলির আঁচড়ে প্রতিমার রূপ ফুঁটিয়ে তুলছেন তারা।

শিল্পির রং-তুলির আঁচড়ে পূর্ণতা পাচ্ছে প্রতিমা

১৫ অক্টোবর ষষ্ঠী পূজার মধ্য দিয়ে শুরু হবে দূর্গাপূজা। তারপর পর্যায় ক্রমে ১৬ অক্টোবর সপ্তমী, ১৭ অক্টোবর অষ্টমী, ১৮ অক্টোবর নবমী ও ১৯ অক্টোবর দশমীর মধ্য দিয়ে পূজা শেষ হবে।

মৃৎ শিল্পীরা বলেন, গত একমাস ধরে বিভিন্ন ডিজাইনের প্রতিমা তৈরির কাজ চলছে। খড়-মাটির কাজ শেষ হয়েছে। এখন থেকে পূজার আগের রাত পর্যন্ত রংয়ের কাজ চলবে।

দৃষ্টিনন্দন সুন্দর প্রতিমা তৈরি করতে হলে মনের মাধুরী দিয়ে কাজ করতে হয় বলে জানান মৃৎ শিল্পীরা। তবে পরিশ্রমের তুলনায় পারিশ্রমিক পর্যাপ্ত নয়। তার পরেও আন্তরিকতার কমতি থাকে না নিপুঁণ এই শিল্পিদের।

বলদেব জিউর আখরা ও শিব মন্দির কমিটির উপদেষ্টা পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রবাস সাহা বলেন, পূজায় নিরাপত্তা নিয়ে আমরা চিন্তা করিনা। আমরা দেশকে ভলোবাসি, তাই আমি মনে করি প্রত্যেকেই নিজ দায়িত্বে ধর্মীয় উৎসব পালন করব। নারায়ণগঞ্জে হিন্দু-মুসলিম কোন ভেদাভেদ নাই। আর প্রশাসন আমাদের পাশে সব সময় সহযোগিতা করেছে এবং এবারও সহযোগিতা করবে। সকল প্রস্তুতি যথা সময়ে শেষ যাবে।

উকিল পাড়া শ্রী শ্রী দূর্গা মন্দিরের প্রস্তুতি সম্পর্কে মন্দির কমিটির প্রচার সম্পাদক পার্থ বলেন, আমাদের পূজার কাজ ৯০শতাংশ প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। বাকিটুকু সময়মত সঠিক সময়ে সম্পূন্ন হয়ে যাবে।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম