Tue, 12 Dec, 2017
 
logo
 

বঙ্গবন্ধুর ৭মার্চের ভাষণ কোন দলের নয় এটি সমগ্র বাঙ্গালী জাতির: সেলিম ওসমান

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান বলেছেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমানের জন্য বাংলাদেশের জন্ম হয়েছে।

বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ। তাঁর ভাষণকে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি দেয়া মানে বাংলার প্রত্যেক নাগরিকের জন্য আন্তর্জাতিক সম্মান অজর্ন।

রোববার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের সার্কিট হাউজে এক সভায় তিনি এসব কথা বলেন। বঙ্গবন্ধুর ৭মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ ইউনেস্কোর ‘মেমোরি অব দ্য’ ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্টার অন্তর্ভূক্তির মাধ্যমে বিশ্বপ্রামাণ্য ঐতিহ্যের স্বীকৃতি লাভের অসামান্য অর্জন উদযাপনের লক্ষ্যে এই প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়।
 
সেলিম ওসমান বলেন, ‘সবার সাথে বন্ধুত্ব কারো সাথে শত্রুতা নয়’ বাঙ্গালি জাতির উদ্দেশ্যে বঙ্গবন্ধু এমন আহবান রেখে গেছেন। তাই বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭মার্চের ভাষণ কোন দলের নয় এটি সমগ্র বাঙ্গালী জাতির। তাই আনন্দ শোভাযাত্রাটি কোন দলের নয় সমগ্র বাঙ্গালীর।

১৯৭৫ এবং ২০০১ সালের পরবর্তী সময়ের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর আমার বাবাকে জেলে নেওয়া হয়েছে। আমাকে নারায়ণগঞ্জ থেকে ধরে নিয়ে অকথ্য নির্যাতন করা হয়েছে। মাত্র ৩৩ হাজার টাকা জন্য আমার জন্মস্থান হীরামহল নিলামে তোলা হয়েছে। ২০০১ সালে আমাকে নারায়ণগঞ্জে থাকতে দেওয়া হয়নি। কিন্তু আমার কাছে এটা বড় বিষয় না। বড় বিষয় হলো নারায়ণগঞ্জের মানুষ আমাদেরকে ভালোবেসেছে।


জেলা প্রশাসক রাব্বি মিয়া সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই, জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত আসনের নারী সদস্য অ্যাডভোকেট হোসনে আরা বাবলী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মতিয়ার হোসেন, মহানগর আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি চন্দন শীল, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি মজিবুর রহমান, জেলা মহিলালীগের সভানেত্রী প্রফেসর শিরীন বেগম, সরকারী তোলারাম কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মধূমিতা চক্রবর্তী, বিকেএমইএ এর সহ-সভাপতি(অর্থ) হুমায়ন কবির খান শিল্পী, পরিচালক জিএম ফারুক, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কর্মাস এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সহ সভাপতি মোর্শেদ সারোয়ার সোহেল, সদর উপজেলার চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আবুল কালাম আজাদ বিশ্বাস, সদর উপজেলার নির্বার্হী কর্মকর্তা তাসনিন জেবিন বিনতে শেখ, বন্দর উপজেলার নির্বার্হী কর্মকর্তা পিন্টু বেপারী সহ জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের শীর্ষ নেতৃবৃন্দরা।

জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ভাষণে ছিল আবেগ ও দেশপ্রেম। ৪৬ বছর পরেও এই ভাষণের আবেদন শেষ হয়নি। বাংলাদেশ আর বঙ্গবন্ধু সমর্থক। বঙ্গবন্ধু ছাড়া বাংলাদেশের কল্পনা করা যেত না। তাঁর ভাষণে একটি জাতিকে একত্রিত করে যুদ্ধে নামিয়ে ছিলেন।

তিনি আরো বলেন, ইতিহাস তার আপন গতিতেই চলে। ইতিহাস কাউকে ক্ষমা করে না। স্বাধীনতার পরে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার করার মাধ্যমে এক শ্রেণীর মানুষ দেশের ইহিতাসকে বিকৃত করার চেষ্টার করেছিল। কিন্তু ইহিতাস তাদের ক্ষমা করে নাই।

শহরজুড়ের অন্যান্য খবর

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম